সিরাজগঞ্জে নেসকোর ৩৩/১১ বিদুৎ উপকেন্দ্রের পাশে আতংকে বসবাস করছে কয়েকটি পরিবার।

আজিজুর রহমান মুন্না,সিরাজগঞ্জ ঃ

সিরাজগঞ্জ শহরের বাহিরগোলা রোড়ে সাথে অবস্হিত  নেসকোর ৩৩/১১ বিদ্যুৎ উপকেন্দ্রের পাশে  নিরাপত্তাহীনতায় আতংকে  বসবাস করছে কয়েকটি পরিবার।  যে কোন সময় বড় ধরনের দূর্ঘটনার আশংকা  সিরাজগঞ্জ  নর্দান ইলেক্টট্রিক সাপ্লাই  কোম্পানী লিমিটেড (নেসকো)’র বর্তমান বিদ্যুৎ  বিক্রয় ও বিতরন  বিভাগ সিরাজগঞ্জে স্থাপিত ৩৩/১১কেভি বিদ্যুৎ  উপকেন্দ্রটির কোন সীমানা প্রচীর নেই। কোন রকমে কাঁটাতারের বেড়া দিয়ে অনেকটা দায়সাড়া ভাবে রাখা হয়েছে এই বিদ্যুৎ উপ-কেন্দ্রটি।এতে যে কোন সময় বড় ধরনের দূর্ঘটনা আশংকা দেখা দিয়েছে।এ অবস্থায় বিদ্যুৎ  উপকেন্দ্র সংলগ্ন পশ্চিমপাশে বসবাস কারি কয়েকটি পরিবার চরম আতংক এবং নিরাপত্তাহীনতায় মধ্যে বসবাস করছেন।

 বিষয়টি অবগত করে এখানে বসবাসকারি পরিবারের পক্ষথেকে বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের চেয়ারম্যান,  সিরাজগঞ্জ নেসকোর নির্বাহী প্রকৌশলী বরাবর সহ সংশ্লিষ্ট বিভাগের সকল জায়গায় ব্যবস্থা গ্রহনের দাবী জানিয়ে চিঠি দিলেও এর কোন সুরাহা হয়নি। এদিকে  ঘরের সাথে  বিদ্যুৎ উপকেন্দ্র নিয়ে বসবাস করতে গিয়ে আতংক, ও চরম নিরাপত্তাহীনতার মধ্যে পড়েছে এখানে বসবাস কারি পরিবারের সদস্যরা।  তারা জেলার শাহজাদপুরের বাঘাবাড়ী বিদ্যুৎ  প্লান্টের বিস্ফোরনের উদাহরন টেনে বলছেন কোন কারনে  সিরাজগঞ্জে অবস্থিত নেসকোর ৩৩/১১কেভি উপকেন্দ্রটির ট্রান্সফারমারে যদি আগুন লেগে ব্রাষ্ট হয়ে যায় তাহলে এখানে বসবাস কারি সকল সদস্যদের প্রাণহানীর আশংকা রয়েছে। তাদের দাবী ৩৩/১১কেভি উপকেন্দ্রটি অন্যত্র সরিয়ে নিয়ে নেয়া  কিংবা শক্ত সীমানা প্রাচীন নির্মান করা যাতে পরিবার গুলো নিরাপদে থাকতে পারে।   

সুত্র থেকে জানা যায় সিরাজগঞ্জ পৌর শহরের বাহিরগোলায় নেসকোর ৩৩/১১কেভি উপকেন্দ্র সংলগ্ন পশ্চিমপাশে   জুফিকার হায়দার খান,জামিল হায়দার খান,ফুলাদ হায়দার খান, নূর-ই-আলম হীরা, মো. আলতাফ হোসেন ও মো. আব্দুস সোবাহান তাদের পরিবার পরিজন নিয়ে বসবাস করছেন। তাদের পৈত্রিক সম্পত্তি সহ অন্যান্যদের সম্পত্তি নিয়ে পাকিস্থান সরকারের সময়ে ৯৬শতক জমিতে সিরাজগঞ্জ পৌর শহরের বাহিরগোলায় বিদ্যুৎ  উৎপাদন কেন্দ্র স্থাপনের জন্য(ইপিওয়াপদা) অধিগ্রহন করা হয়। তাদের বাড়ীর সীমানা থেকে নিরাপদ দুরত্বে ৬৬/১১ বিদ্যুত উৎপাদন কেন্দ্র স্থাপন করা হয়। তখন কোন সমস্যা হয়নি। কিন্ত স্বাধীনতা পরবর্তি সময়ে ৬৬/১১ বিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্র  থেকে আরো পশ্চিম দিকে সরিয়ে নিয়ে গিয়ে বিদ্যুৎ বিভাগ এ সকল পরিবারের ঘরের সাথে  লাগোয়া ভাবে  ৩৩/১১কেভি বিদ্যুৎ  উপকেন্দ্রটি নির্মান করেন। সীমানা প্রাচীর নির্মান না করে এবং কোন নিরাপত্তামূলক ব্যবস্থা গ্রহন না করায় ঝুঁকির মধ্যে পরে এর পাশে বসবাস কারি পরিবার গুলো। সেই সময়ে  এখানে বসবাসকারিদের  ঘরের সাথে প্রায় লাগোয়া ভাবে ৩৩/১১কেভি বিদ্যুৎ উপকেন্দ্রটি নির্মান না করার জন্য  পরিবারের সকল সদস্য আপত্তি জানায় এবং তাদের নিরাপত্তার দাবী জানালে সেই সময়ে প্রকৌশলীগণ তাদের জানায়  কোন ভয় নেই নিরাপত্তার সকল ব্যবস্থা বিদ্যুৎ বিভাগ করে দিবে বলে আশ্বাস প্রদান করেন। কিন্ত সীমানা প্রাচীর নির্মান করা সহ নিরাপত্তার বিষয়টি কার্যকরি না হওয়ায় নিরাপত্তাহীনতার মধ্যে দীর্ঘদিন থেকে ঝুকির মধ্যে  বসবাস করছেন কয়েকটি পরিবার।    

এখানে বসবাসকারি ফুলাদ হায়দার খান বলেন, সিরাজগঞ্জ ৩৩/১১কেভি  বিদ্যুৎ উপকেন্দ্রটির  পাশ্চিম পাশে প্রায় লাগোয়া আমাদের বাড়ী বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মানের পূর্ব থেকে অবস্থিত তাই মানবিক দিক বিবেচনা করে বিদ্যুত কেন্দ্রটি অন্যত্র সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হোক ।  তিনি আরো বলেন, শক্তিশালী বিদ্যুৎ উপকেন্দ্রটির  ট্রান্সফারমারে কোন ধরনের দুর্ঘটনা ঘটলে  পরিবারের সবার প্রাণহানী ঘটতে পারে। পরিবারের সদস্যদের নিয়ে সব সময় আতংকের মধ্যে থাকি কখন যেন কি হয়।  বিষয়টি আমারা বিদ্যুৎ বিভাগ সহ সংশ্লিষ্ট বিভাগের সকল জায়গায় ব্যবস্থা গ্রহনের দাবী জানিয়ে চিঠি দিয়েছি কিন্ত এর কোন  ব্যবস্থা গ্রহন করা হয়নি। 

নেসকোর    রাজশাহী বিভাগীয় প্রধান প্রকৌশলী খায়রুল আমিন বলেন, বিদ্যুৎ উপকেন্দ্রটির পাশে দেয়াল থাকা উচিত তবে যদি না থেকে থাকে এবং সেখানে বসবাস কারিদের অবস্থান দেখে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে। নেসকো’র  পাবনা বিভাগীয় তত্বাবধায়ক প্রকৌশলী জিয়াউল ইসলাম বলেন, এই বিদ্যুত কেন্দ্র থেকে সমস্ত সিরাজগঞ্জে বিদ্যুৎ সরবরাহ হয়ে থাকে তাই বিদ্যুত উপকেন্দ্র ইচ্ছে করলেই সরিয়ে নেয়া যায় না । এটা কর্তৃপক্ষ এবং মন্ত্রনালয়ের ব্যাপার । তবে তিনি বলেন, তারা আবেদন করলে দেখে সেখানে বসবাস কারিদের বিষয়টি বিবেচনা করে যতটা সম্ভব বাস্তব সম্মত ব্যবস্থা নেয়া যেতে পারে।   

সিরাজগঞ্জ নেসকোর  বিক্রয় ও বিতরন  বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী  গোবিন্দ চন্দ্র সাহা বলেন,আমি সম্প্রতি যোগদান করেছি বিষয়টি আমি অবগত নই বিদ্যুৎ উপকেন্দ্রটির পাশে বসবাসকারীরা আমাকে জানালে বিষয়টি আমি উদ্ধতন কর্তৃপক্ষকে জানাবো তারাই এর বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবেন।

পাঠকের মন্তব্য
আরো পড়ুন