চৌহালীতে অধিকাংশ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নেই শহীদ মিনার

আবির হোসাইন শাহিন, নিজস প্রতিনিধি:

সিরাজগন্জ চৌহালী উপজেলার অধিকাংশ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শহীদ মিনার নেই। যার কারনে অধিকাংশ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পালিত হয়না বিজয় দিবস ও আর্ন্তজাতিক মাতৃভাষা দিবস সহ অন্য সব দিবস গুলো। কোনো কোনো শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অস্থায়ী শহীদ মিনার দিয়ে পালিত হয় বিজয় দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস। ভাষা আন্দোলনের ৬৭ বছর পার হলেও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গুলোতে শহীদ মিনার নির্মিত না হওয়ায় ভাষা শহীদদের প্রতি যথাযথ ভাবে শ্রদ্ধা জানাতে পারছে না এসব বিদ্যালয়ের হাজার হাজার শিক্ষার্থীরা। বির্শ্বের বিভিন্ন দেশে বিজয় দিবসের স্থান থাকলেও এবং দিবসটি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে পালিত হলেও চৌহালীর বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানানো হয় স্থানীয় ভাবে তৈরি করা কলাগাছ কিংবা বাঁশের কিছু দিয়ে তৈরি শহীদ মিনার দিয়ে। কোনো কোনো বিদ্যালয়ে সেটাও করা হয় না। চৌহালী উপজেলা প্রাথমিক ও মাধ্যমিক শিক্ষা অফিস সূত্রে জানা যায়, উপজেলায় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় রয়েছে ১২৮ টি, মাধ্যমিক বিদ্যালয় রয়েছে ২০টি, মাদ্রাসা ১৫ টিও কারিগরি কলেজ ৩ টি।

এসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মধ্যে কতটিতে শহীদ মিনার রয়েছে তার কোনো তথ্য জানাতে পারেননি উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা। সরেজমিন গিয়ে দেখা যায়, উপজেলার মন্জুর কাদের কলেজ, শহীদ আর পিএন , খাষকাউলিয়া বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, খাষকাউলিয়া কে ,আর পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়, সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, সদর মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, মাষ্টার পাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, কে কে জোতপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, খাষকাউলিয়া সিদ্দিকীয়া ফাজিল মাদ্রসা সহ একাধিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শহীদ মিনার নেই। ফলে এসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের হাজার হাজার শিক্ষার্থীরা প্রত্যেক বছর বিজয় দিবস ও ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে পারে না। কোনো কোনো বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা অন্য স্থানে গিয়ে বিজয় দিবস ও ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানায়।

এভাবে বছরের পর বছর যায় তবু শহীদ মিনার নির্মাণ হয় না এসব বিদ্যালয়ে। যেসব প্রতিষ্ঠানে শহীদ মিনার আছে সেগুলোও অযন্তে অবহেলায় পড়ে থাকে বছরের বেশির ভাগ সময়ই। শুধু মাতৃভাষা দিবস সহ অন্যান্য দিবস আসলে পরিষ্কার করা হয়। খাষপুকুরিয়া ইউনিয়নের পুকুরিয়া কোদালিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা আলেয়া খাতুন বলেন, আমাদের বিদ্যালয়ে কোনো শহীদ মিনার নেই। তাই মাতৃভাষা দিবসে আমরা স্কুলের পাশের একটি মসজিদের শহীদ মিনারে শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা মিলে পুষ্পমাল্য অর্পণ করি। উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মোঃ শাহাদৎ হোসেন বলেন, আমরা সব বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষককে চিঠির মাধ্যমে শহীদ মিনার তৈরি , বিজয় দিবস ও মাতৃভাষা দিবস পালন করার জন্য বলা হয়েছে। যদি কোনো বিদ্যালয় মাতৃভাষা দিবস পালন না করে তবে তাদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে। এ বিষয়ে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার (ভা:)মনিরুল ইসলাম বলেন, যারা শহীদ মিনার তৈরি করেছে তারা করেছে। আর যারা করে নাই তারা করে নাই।

শহীদ মিনার তৈরি করতে কোন সরকারী বাজেট নেই। যারা তৈরি করেছে তারা নিজ উদ্যোগে তৈরি করেছে। এ বিষয়ে চৌহালী উপজেলা নির্বাহী অফিসার দেওয়ান মওদুদ আহমেদ বলেন, বিষয়টি আমি ইতি মধ্যেই জেনেছি। আর এসব আন্তর্জাতিক দিবস গুলোর আয়োজন বিদ্যালয় গুলোতে কেন হয় না তা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তাকে সরেজমিন তদন্তকরতে বলা হয়েছে। এছাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে গুলোতে বাজেট না পাওয়ার কারনে তারা শহীদ মিনার তৈরি করতে পারছে না। কিছু-কিছু প্রতিষ্ঠান প্রদানের আন্তরিকতার অভাবও রয়েছে ৷তবে এ বিষয় গুলো উল্লেখ করে লিখিত আকারে মন্ত্রানালয়ে আমরা চিঠি পাঠাবো

পাঠকের মন্তব্য
আরো পড়ুন