উল্লাপাড়ায় নিজের লালসা মিটাতে না পেরে গৃহবধুর চুল কেটে দিলেন আওয়ামিলীগ নেতা

উল্লাপাড়া (সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধিঃ মোঃ আব্দুস ছাত্তার

উল্লাপাড়ায় নিজের লালসা মেটাতে না পেরে ২ সন্তানের জননী গৃহবধুকে মিথ্যা চরিত্রহীনার অভিযোগ দিয়ে বটি দিয়ে মাথার চুল কেটে দিয়েছে ওয়ার্ড আঃ লীগ নেতা ও তার সহযোগীরা । গত ২৫ নভেম্বর রাতে চাঞ্চল্যকর এ ঘটনা ঘটেছে সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়া উপজেলার উধুনিয়া ইউনিয়নের গজাইল গ্রামে । এ ঘটনায় নির্যাতিতা গৃহবধু বাদি হয়ে উল্লাপাড়া মডেল থানায় ওই ওয়ার্ড আঃ লীগ নেতা ও তার ৪ সহযোগীর বিরুদ্ধে ২ ডিসেম্বর মামলা দায়ের করেছেন । মামলা দায়ের পর আসামীদের প্রাণ নাশের হুমকিতে ভয়ে গৃহবধু পাশ্ববর্তী গ্রামে তার বাবার বাড়িতে আশ্রয় নিয়েছে । গ্রেফতার এড়াতে আঃ লীগ নেতা ও তার সহযোগীরা আত্নগোপনে থেকে প্রভাবশালীদের মাধ্যমে বিষয়টি ধামাচাপা দিতে নানা তৎপরতা শুরু করেছে ।

মামলার আরজি ও নির্যাতিত গৃহবধুর পরিবারের সাথে কথা বলে জানা যায়,ঘটনার দিন সন্ধায় ওই গৃহবধু আত্নীয়ের বাড়িতে যাওয়ার জন্য ভাড়া হোন্ডার খোঁজে বের হন । পথিমধ্যে একই গ্রামের মৃত আবেদ আলীর ছেলে সাইফুল ইসলামের বাড়ির পাশে যেতেই সেখানে তাকে অতর্কিত ভাবে আটকিয়ে ফেলেন স্থানীয় ওয়ার্ড আঃলীগের সভাপতি মোঃ আব্দুর রশিদ ও তার সহযোগীরা। তারা গৃহবধুর বিরুদ্ধে সাইফুল ইসলামের সাথে আপত্তিকর কর্মকান্ডে লিপ্ত থাকার মিথ্যা অভিযোগে আটক করে চিৎকার করে লোকজন জোগাড় করে। চিৎকার শুনে গ্রামের লোকজন ছুটে এলে সেখানে তাৎক্ষনিক সবার সামনে মাছকাটা বটি দিয়ে দ্রুত ওই আঃ লীগ নেতা আব্দুর রশিদ তার সহযোগিদের সহযোগিতায় নিজ হাতে ওই গৃহবধুর চুল কেটে দেয় এবং উল্লাস প্রকাশ করে । চুল কাটার সময় ওই গৃহবধু অনেক আকুতি – মিনতি করেও রেহাই পায়নি ।

এর পর গৃহবধুর মাথা ন্যাড়া করে দেওয়ার জন্য রাতেই গজাইল বাজারে শরিফ নামের এক সেলুন শ্রমিকের কাছে ক্যাচি(কাঁচি) আনতে যায় । ক্যাচি না দেওয়ায় ওই সেলুন শ্রমিককে তারা মারধর করে বলে সেলুন শ্রমিক শরিফ জানায় । এদিকে ওই ঘটনার ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে। সেখানে দেখা যাচ্ছে আঃলীগ নেতা আব্দুর রশিদ তার সহযোগীদের নিয়ে বটি দিয়ে চুল কেটে উল্লাস করছেন।

ঘটনার পর সেখান থেকে পালিয়ে ওই গৃহবধু তার সন্তানদের নিয়ে পাশ্ববর্তী তরফ বায়রা গ্রামে তার বাবার বাড়িতে আশ্রয় নিয়েছে। নিকট আত্নীয়দের সহায়তায় ২ ডিসেম্বর গৃহবধু বাদী হয়ে উল্লাপাড়া মডেল থানায় আঃলীগ নেতা আব্দুর রশিদ সহ একই গ্রামের মোজাহারের পুত্র মুনসুর,বাহের আলীর পুত্র ছালাম,নাসির ও শহিদুল ইসলামকে আসামীকে করে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের ১০/৩০ ধারায় একটি মামলা দায়ের করেছে। মামলা নং ২। মামলা দায়ের হওয়ার পর থেকে আসামীরা রাতে আত্মগোপনে থেকে দিনের বেলায় প্রকাশ্যে এসে মামলা তুলে নিতে বাদিনীকে হুমকি দিচ্ছে ।

গজাইল গ্রামের সাইফুল ইসলাম ও ইউনুস আলী জানান, কেউ অপরাধ করলে তাকে আইনের হাতে তুলে দেওয়া উচিত কিন্তু এ ভাবে ওই গৃহবধুর চুল কেটে দেওয়া ঠিক হয়নি । তারা জানান, আঃ লীগ নেতা আব্দুর রশিদ প্রভাব বিস্তার করে এর আগেও শিক্ষক সহ এলাকার অনেককেই মারধর করেছে। দলীয় প্রভাবে তিনি বে-পরোয়া। তারা এ ঘটনায় আইনানুযায়ী শাস্তি দাবী করেন । এ বিষয়ে নির্যাতিত গৃহবধু জানান, আঃ লীগ নেতা আব্দুর রশিদ বেশ কিছু দিন ধরে তাকে নানা কু-প্রস্তাব দিয়ে আসছিল । পরে তার বাড়ির ডিস সংযোগ কেটে দেওয়া হয় । এর পর থেকে তার সাথে দন্ড শুরু হয় । তখন থেকে সে তাকে নানাভাবে দেখে নেয়ার হুমকি দিয়ে আসছিল । নির্যাতিত গৃহবধু জানান তিনি নিরাপরাধ। তার বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ দিয়ে সবার সামনে মাথার চুল কেটে নির্যাতন করা হয়েছে। এতে তিনি সামাজিকভাবে হেয় প্রতিপন্ন হয়েছেন। ঘটনার পর থেকে তিনি রাতে ঘুমাতে পারছে না। এমনকি সমাজে মুখ দেখাতে পারছেন না। বাড়ি থেকে লজ্জায় বের হতে পারছেন না। এ কথা বলতে গিয়ে তিনি কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন। তিনি আরোও জানান,মামলা তু্লে নিতে চাপ প্রয়োগ সহ দেখে নেয়ার হুমকি দিচ্ছে আসামীরা। তিনি তার সাথে ঘটে যাওয়ার ঘটনার সুষ্ট তদন্ত ও বিচার দাবী করেন।

গৃহবধু নির্যাতনের অভিযোগের বিষয়ে আঃ লীগ নেতা আব্দুর রশিদ বলেন তিনি ওই গৃহবধুর চুল কাটেননি । অসামাজিক কার্যকালাপে জড়িত থাকার সময় গ্রামবাসী তাকে লোকজন নিয়ে আটক করে মাথার চুল কেটে দিয়েছে। স্থানীয় একটি মহল এ ঘটনায় তাকে জড়িত করে ওই গৃহবধুকে দিয়ে মামলা করিয়েছে। এ বিষয়ে উল্লাপাড়া মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ শাহীন শাহ পারভেজ জানান থানায় মামলা দায়ের হয়েছে । আসামীদের গ্রেফতারের জন্য অভিযান চলছে ।

পাঠকের মন্তব্য
আরো পড়ুন