উল্লাপাড়ায় চলমান নদীর ভিতর অপরিকল্পিত ভাবে কালভার্ট নির্মান

উল্লাপাড়া প্রতিনিধিঃ মোঃ আব্দুস ছাত্তার

রাস্তা তৈরি না করেই চলমান নদীর মধ্যে ছোট কালভার্ট নির্মাণ করে অভিনব উন্নয়ন করা হয়েছে। এই কালভার্ট নির্মাণে সরকারি কোষাগার থেকে ব্যয় করা হয়েছে প্রায় ২ লক্ষাধিক টাকা। অথচ এই কালভার্টটি জনগণের কোন কাজেই আসছে না। অপরিকল্পিত এমন উন্নয়ন হয়েছে সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়া উপজেলার বড় পাঙ্গাসী ইউনিয়নের সৈয়দপুর পাঙ্গাসী কবরস্থানের পাশে বিল সূর্য শাখা নদীতে। জানা যায়, ২০১৮-১৯ অর্থ বছরে এডিপি এর আওতায় বড় পাঙ্গাসী ইউনিয়ন থেকে ওই কালভার্ট নির্মাণে ২ লাখ টাকা ব্যয় করা হয়।

স্থানীয়রা জানান, নদী পথে ইউপি চেয়ারম্যানের বাড়ি থাকায় তিনি রাস্তা নির্মাণ না করেই ওই কালভার্ট নির্মানের উদ্যোগ নেন। কালভার্টটি নদীর মধ্যে স্থাপন করার পর সেখানে মানুষের চলাচলের জন্য কোন সংযোগ সড়ক নির্মাণ করা হয়নি। এতে কালভার্টটি মানুষের চলাচলের জন্য কোন কাজেই আসছে না। অথচ ব্যক্তি সুবিধার্থে ইউপি চেয়ারম্যান অপরিকল্পিত এমন উন্নয়ন কর্মকান্ডের নামে সরকারি কোষাগারের ২ লক্ষাধিক টাকা পানিতে ভাসিয়ে দিয়েছেন। সোমবার সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, বিল সূর্য নদীর শাখা খালে রাস্তা ছাড়াই পানির মধ্যে অপরিকল্পিত ভাবে এই কালভার্টটি নির্মাণ করা হয়েছে।

এর দু’পাশে কোন রাস্তাই তৈরি করা হয়নি। কালভার্টটির চারিদিকে কাঁদায় পরিপূর্ণ। স্থানীয়রা জানায়, এটি চলমান নদী। অল্পকিছুদিন নদীটি শুকনো থাকে। তখন স্থানীয়রা পায়ে হেঁটে এখান দিয়ে চলাচল করে। বছরের বাকি সময় এটি পানি পূর্ণ থাকে। এখানে কালভার্ট নির্মাণ করায় নৌকা চলাচল ব্যহত হয়। চলমান নদীর মধ্যে কী উদ্দেশ্যে এভাবে কালভার্ট নির্মাণ করা হলো তা স্থানীয়দের বোধগম্য নয়।

এ বিষয়ে বড়পাঙ্গাসী ইউপি চেয়ারম্যান হুমায়ন কবির লিটনের সাথে কথা হলে তিনি জানান, ওই পথে অনেক মানুষই চলাচল করে। সে জন্যই ওই কালভার্টটি নির্মাণ করা হয়েছে। আগামিতে কালভার্টের দু প্বার্শে মাটি ভরাট করে রাস্তা তৈরি করা হবে । এটা আমার ব্যক্তিগত প্রয়োজনে নির্মাণ করা হয়নি। চলমান নদীর মধ্যে রাস্তা ছাড়া অপরিকল্পিত ভাবে কালভার্ট নিমাণ করার যৌক্তিকতা নিয়ে প্রশ্ন করা হলে তিনি জানান অপরিকল্পিত নয় জনগনের চলাচলের সুবিদার জন্যই কালভার্ট নির্মান করা হয়েছে ।

পাঠকের মন্তব্য
আরো পড়ুন