আমি গর্বিত কারন আমি একজন পোশাক শ্রমিক

করোনা ভাইরাস বাংলাদেশে একটা আতংকের নাম।প্রতিদিনই বাড়ছে মৃত্যুর মিছিল।করোনা ভাইরাসের কারনে স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসা,রাস্তাঘাট,অফিস, আদালত সব যখন বন্ধ তখন পোশাক শ্রমিক মৃত্যুকে উপেক্ষে করে একরাশ অনিশ্চয়তাকে সামনে নিয়ে অফিস করতে হয়।আগামী ২৬ শে মার্চ থেকে ৪ এপ্রিল পর্যন্ত সকল সরকারি বেসরকারি অফিস বন্ধ ঘোষনা। অথচ পোশাক কারখানা বন্ধের ব্যাপারে এখনও কোন সিদ্ধান্ত হয়নি।বলাবাহুল্য বাংলাদেশ টিকে আছে যে দুটি সেক্টরের উপর তা হল এক গার্মেন্টস দুই হল প্রবাসী। অথচ আমরা এদেরকে দেখে নাক ছিটকাই অবজ্ঞা করি। করোনা ভাইরাস বিশ্বব্যাপি আলোচিত ইস্যু।

পৃথিবীর বেশিরভাগ দেশ যেখানে লক ডাউন সেখানে জীবনকে হাতের মুঠোয় নিয়ে দেশের চাকা ঠিক রাখতে একজন গার্মেন্টস শ্রমিক জীবনের সর্বোচ্চ ঝুকি নিয়ে অনিশ্চতার মাঝে কাজ করে যাচ্ছে।একবার ভেবে দেখেছেন কি একজন পোশাক শ্রমিক কতটা নিরাপদ ? করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে সে কতটুকু সেফটি নিয়ে কাজ করে? সবথেকে বেশি মানুষের সমাগম হয় পোশাক কারখানায় অথচ সরকার এখানে কোন পদক্ষেপ নেয়নি।আমি কিন্তু কারখানা বন্ধের পক্ষে না আমিও চাই পোশাক কারখানা খোলা থাকুক কারন ৫০ লক্ষ লোক সরাসরি আর প্রায় ৪ কোটি লোক ওতপ্রোতভাবে এই শিল্পের সাথে জড়িত। তাছাড়া এই শিল্প বন্ধ হয়ে গেলে মানুষ বেকার হয়ে পড়বে। প্রতিদিন যখন কারখানায় যাই এক রাশ অনিশ্চতা নিয়ে যাই কারণ সুস্থভাবে ঘরে ফিরতে পারবতো? করোনার ভয়াবহতা যদি পোশাক কারখনায় বিস্তার লাভ করে তাহলে এর দায়ভারই বা কে নিবে? ঊর্ধ্বতন কতৃপক্ষের শুভবুদ্ধির উদয় হোক এটাই কামনা করি ,

মোঃ শাহিন আলম
আই ই এক্সিকিউটিভ

পাঠকের মন্তব্য
আরো পড়ুন