হামিদা খানম ভাসানীর ৫৫তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ

মোঃশরিফুল ইসলাম, টাঙ্গাইল প্রতিনিধি :

মজলুম জননেতা মওলানা আবদুল হামিদ খান ভাসানীর সহধর্মিনী হামিদা খানম ভাসানী ১৯১৮ খ্রিষ্টাব্দে বগুড়া জেলার আদমদিঘি থানার কাঞ্চনপুর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। পিতা কাসেম উদ্দিন সরকার জমিদারশ্রেণীভুক্ত একজন সমাজ হিতৈষি ধর্মপ্রাণ মুসলমান ছিলেন। অত্র এলাকায় কৃষক সংগঠনের রেশ ধরেই মওলানা ভাসানীর সাথে তাঁর পরিচয়। ১৯৬৪ খ্রিষ্টাব্দের ২৮ ডিসেম্বর (বাংলা ১৩ পৌষ), সোমবার সুবেহ সাদিকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে দুরারোগ্য ক্যান্সার ব্যাধীতে মৃত্যুবরণ করেন হামিদা খানম। কৃষক আন্দোলনের একপর্যায়ে এই কাসেম সরকারের বাড়িতে আশ্রয় গ্রহণ করেন ভাসানী।

এই সময় স্থানীয় মহারাজার সাথে একটি মসজিদ নিয়ে কাসেম সরকারের বিরোধ চলছিল চরমে। মওলানা ভাসানীও ক্রমে সেই বিরোধে নিজেকে জড়িয়ে ফেলেন। মহারাজার সাথে লড়াই করে বিজয়ী হন এবং কিছুদিন সেই মসজিদে ইমামতির দায়িত্ব পালন করেন। মসজিদে ইমামতির পাশাপাশি স্থানীয় কৃষকদের সংগঠিত করে এখানে আয়োজন করেন বিরাট এক কৃষক সম্মেলনের। সফল সম্মেলন শেষে বিয়ে করেন সরকার কন্যা উমিলা খাতুনকে। বিয়ের পর ভাসানী তার নাম দিলেন হামিদা খানম। নিয়ে গেলেন আসামের ঘাগমারীতে। আসামে গরীব ভক্ত-মুরীদের সন্তানদের লেখাপড়ার যোগান দিতে হামিদা খানম ভাসানী নিজেকে নিবেদিত রাখেন। এখানেই জন্মগ্রহণ করেন হামিদা খানম ভাসানীর একমাত্র পূত্র আবুবকর খান ভাসানী এবং কন্যাদ্বয় আনোয়ারা খানম ভাসানী ও মনোয়ারা খানম ভাসানী। ১৯৪৭ খৃষ্টাব্দে ভারত ভাগের পর তিনি পূত্র-কন্যা সমেত চলে আসেন ভূরুঙ্গামারীর ভাসানী নগর গ্রামে।

১৯৬৪ খ্রিষ্টাব্দের ২৮ ডিসেম্বর (বাংলা ১৩ পৌষ), সোমবার সুবেহ সাদিকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ৪ নং ওয়ার্ডের ১০ নং বেডে দুরারোগ্য ক্যান্সার ব্যাধীতে মৃত্যুর পূর্ব পর্যন্ত তিনি এখানেই বসবাস করেছেন। হামিদা খানম ভাসানী তাঁর জীবন-যাপন, চাল-চলন, কথা-বার্তায় ছিলেন বেশ বিচক্ষণ ও মানবহিতৈষী। তাঁর মৃত্যুর পর ভাসানী নগর, দঃ ছাট গোপালপুর গ্রামে পূত্র আবুবকর খান ভাসানী প্রতিষ্ঠা করেন ‘হামিদা খানম ভাসানী উচ্চ বিদ্যালয়’। মহিয়সী এই নারীর ৫৫তম মৃত্যুবার্ষিকীতে তাঁর স্মৃতির প্রতি জানাই গভীর শ্রদ্ধা।

পাঠকের মন্তব্য
আরো পড়ুন