সিরাজগঞ্জে বাউল শিল্পী গোষ্ঠির ১৫ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষ্যে গ্রামবাংলার পালাগান অনুষ্ঠিত।

আজিজুর রহমান মুন্না,সিরাজগঞ্জ ঃ

সিরাজগঞ্জে বাউল শিল্পী গোষ্ঠীর ১৫তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে গ্রামবাংলার চিরায়ত ঐতিহ্য পালাগান অনুষ্ঠিত হয়েছে। সিরাজগঞ্জ  শহরের শহীদ এম, মনসুর আলী অডিটোরিয়ামে আনন্দঘন পরিবেশে সোমবার রাতে এ পালাগান অনুষ্ঠিত হয়। ‘গুরু-শিষ্য’ শীর্ষক পালাগানের লড়াইয়ে অংশ নেন সিরাজগঞ্জের আয়নাল বয়াতী ও নওগাঁর নিলুফা ইয়াসমিন।
অনুষ্ঠানে বহু দর্শক-শ্রোতার উপস্থিতিতে যুক্তি-তর্কের মধ্যে এই পালাগান অনুষ্ঠিত হয়। দীর্ঘদিন পর এমন পালাগান দর্শকদের মাঝে ব্যাপক সাড়া পড়ে। প্রবীণ ও তরুণরা বলেন, বাউল গান, পালাগান গ্রামবাংলার সংস্কৃতির প্রাণ। মঞ্চে এ আনন্দঘন পালাগান অত্যন্ত শ্রুতিমধুর। গ্রামবাংলা থেকে পালাগান প্রায় উঠে যাওয়ায় বাউল শিল্পীরা এখন মানবেতর জীবনযাপন করছেন। আবারো গ্রামবাংঙলায় এসব গান শুরু হলে বাউল শিল্পীদের দুঃখ কষ্ট কেটে যাবে। সেই সাথে আনন্দভরা পালাগানের প্রভাব ছড়িয়ে পড়বে গ্রামবাংলায়।
এ বিষয়ে সিরাজগঞ্জ বাউল শিল্পী গোষ্ঠীর নেতৃবৃন্দ বলেন, ১৫তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে প্রথম দিন বাউল গান ও দ্বিতীয় দিন পালাগানের আয়োজন করা হয়েছে। গ্রামবাংলার চিরায়ত ঐতিহ্যের এ গানকে মানুষ এখনো ভুলতে পারেনি। এ পালাগান গ্রামবাংলায় আনুষ্ঠানিকভাবে শুরু করা প্রয়োজন বলে তারা দাবি করেন।
জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান সাবেক মন্ত্রী আব্দুল লতিফ বিশ্বাস বলেন, গ্রামবাংলার সংস্কৃতিক ঐতিহ্যের ধারক ও বাহক পালাগান। এ পালাগান গ্রামবাংলা থেকে প্রায় বিলুপ্ত হলেও মানুষ এখনও তা ভুলতে পারেনি। যে কারণে এম মনসুর আলী অডিটরিয়ামে অসংখ্য নারী-পুরুষের উপস্থিতি প্রমাণ করেছে এখনো গ্রামবাংলায় ঐতিহ্যবাহী বাউলগান ও পালাগানের ভক্ত রয়েছে। এজন্য এ পালাগানের ঐতিহ্য ধরে রাখতে বাউল শিল্পীদের সহযোগিতা করা প্রয়োজন বলে তিনি মনে করেন। এ অনুষ্ঠানে রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ, জেলা প্রশাসন, সাংবাদিক, জনপ্রতিনিধিসহ বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষ উপস্থিত ছিলেন।

পাঠকের মন্তব্য
আরো পড়ুন