সিরাজগঞ্জে পোল্ট্রি খামারের বিষ্ঠায় অতিষ্ঠ এলাকাবাসি!

সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি :

সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলার কালিয়া হরিপুর ইউনিয়নের চর কল্যানী গ্রামে সরকারী অনুমতি উপেক্ষা করে আবাসিক এলাকাতে অবৈধ ভাবে গড়ে তুলেছে মুরগী খামার। অভিযোগ সুত্রে জানা যায়, চর কল্যানী গ্রামের মোঃ আব্দুল মজিদের ছেলে শাহিন মোল্লা ও গোলাম মোল্লার ছেলে রাকিব মোল্লা গং গত ৭/৮ বছর ধরে সরকারী অনুমোদন বিহিন দুইটি পোল্ট্রি খামার গড়ে তুলেছে।

মঙ্গলবার সকালে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, আবাসিক এলাকা হওয়ায় খামারের বর্জ ফেলার কোন জায়গা নেই। খামারের নিচে বর্জ জমে যেন ময়লার ভাগার তৈরী হয়ে আছে। এতে এলাকায় দুর্গন্তে পরিবেশের ভারসাম্য নষ্ট হয়ে পড়েছে। সাধারণ মানুষের মাঝে ছড়িয়ে পড়ছে নানা রোগ বালাই। শুধু তাই নয়, খামারের গন্ধের কারণে ওই এলাকার কোন মেয়ের বিয়েও হচ্ছেনা। এই গ্রামে আত্মীয় করতে এসে পরিবেশের অবস্থা দেখে ফিরে যায়। খামারটির আশপাশে মুরগির বিষ্ঠা ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে। পানিনিষ্কাশনের ব্যবস্থা নেই। খামারের চারপাশে বসতবাড়ি। এসব বাড়ি থেকে তীব্র দুর্গন্ধ পাওয়া যাচ্ছে। এবিষয়ে মহিলা কলেজের ছাত্রী সুমি খাতুন বলেন, মুরগীর বিষ্ঠার গন্ধে তিন বেলা খেতে পারি না। ঘড়ে বসে লেখাপড়া করতে সমস্যা হচ্ছে। ওই গ্রামের বাসিন্দা শাপলা খাতুন বলেন, খামারের গন্ধের কারনে কোন মেয়ের বিয়ে হচ্ছেনা। তিনি আরোও বলেন গতকাল আমার ননদের বিয়ে ভেঙে গেছে এই পরিবেশের কারনে।

চর কল্যানী মসজিদ কমিটির সদস্য মো. সাজেদুল ইসলাম বলেন, খামারের দুর্গন্ধের কারনে এই মসজিদে কোন তাবলিগ জামাত আসে না। এবং মুসুল্লীরা জামাতে নামাজ আদায় করতেও আসেনা। তিনি আরোও জানান, এই খামার বন্ধের কারনে আমরা জেলা প্রশাসকসহ সরকারী বিভিন্ন দপ্তরে লিখিত অভিযোগ দিয়েছি। এই খামার সরানোর জন্য সংশ্লিষ্ঠ কর্তৃপক্ষের সুদৃষ্টি কামনা করছি।

অভিযুক্ত শাহিন মোল্লা সাংবাদিকের সাথে ক্ষিপ্ত হয়ে বলেন, আমার জায়গায় আমি খামার দিয়েছি। কারও কোন অসুবিধা হলে আমার দেখার বিষয় না।

সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলার নির্বাহী অফিসার সরকার অসীম কুমার জানান, চর কল্যানী গ্রামের মুরগীর খামারের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। এ বিষয়ে উপজেলা প্রানী সম্পদ কর্মকর্তাকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন
করার জন্য দায়িত্ব দেয়া হয়েছে।

পাঠকের মন্তব্য
আরো পড়ুন