সিরাজগঞ্জে নাট্যলোকে’র সপ্তম প্রযোজনায় অনুষ্ঠিত হলো নাটক রূপ সুন্দরী

আজিজুর রহমান মুন্না,  সিরাজগঞ্জঃ

সিরাজগঞ্জে নাট্যলোকে’র সপ্তম প্রযোজনায় অনুষ্ঠিত হলো নাটক রূপ সুন্দরী।  শুক্রবার  (৮ নভেম্বর) সন্ধ্যা ৭টায় সিরাজগঞ্জের পৌর ভাসানী মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হয় নাটক রূপসুন্দরী। তরুণ নাট্যকার মাহবুব আলম রচনায় , অনিক কুমার সাহা নির্দেশনা নাটকটি মঞ্চায়ন হয়। রূপসুন্দরী নাটকের বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করছেন- ত্বসিন, লাহিম, মমিন বাবু, জহুরুল রতন, রেজাউল, শাহানা, চিন্ময় সূত্রধর, টুটুল, আকাশ, বিপ্লব, ইমরান, আপন, তিতাস, রাফি, পাপ্পু, হাসেম, আবিদ এবং প্রান্ত সহ অনেকে । সামাজিক স্বীকৃতি না থাকলে নারীর ঠিকানা আসলে কোথায়? জমিদারের ঔরসজাত সুন্দরী কন্যা হয়েও সামাজিক স্বীকৃতি না থাকায় তাকে পড়তে হয় জমিদারের লালসার নজরে। সন্তানের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে সুন্দরীর মা তাকে পরামর্শ দেয় বাড়ি ছেড়ে পালাতে। কিন্তু কি করবে সুন্দরী? ভেবে কূল কিনারা পায় না।

অবশেষে মায়ের পরামর্শেই বাড়ি ছাড়ে সুন্দরী। নিজের রূপ লুকিয়ে ছদ্মবেশে ঘুরতে থাকে এক জায়গা থেকে আরেক জায়গায়। অবশেষে পুণ্ড্র নগরীর এক লোকগাথা করতোয়া নদীতে শীলাদেবীর আত্মাহুতি আর তার লাশ ভেসে ওঠার স্থানে গড়ে ওঠা বান্নির মেলায় তার সাক্ষাৎ হয় ছলিমের সাথে। ঘটনাক্রমে সে আশ্রয় পায় ছলিমের বাড়িতে। আবার সৃষ্ট পরিস্থিতির কারণে জীবনসঙ্গী করতে হয় ছলিমকে। বিয়ের পরে উন্মোচিত হয় তার আসল পরিচয়। কিন্তু যে ভয়ে সে বাড়ি ছেড়ে   ছলিমের কাছে আশ্রয় নেয় সেই ভয়ের স্বীকারই হয় সুন্দরী। এক পর্যায়ে তালুকদারের লোলুপ দৃষ্টি পড়ে সুন্দরীর রূপে। সেই রোষে প্রাণ যায় ছলিম আর সুন্দরীর। ভিন্ন এক পেক্ষাপট রচনার মধ্যে দিয়ে নাট্যকার মাহবুব আলম রূপসুন্দরী’ নাটকে শীলাদেবীর এক পরিবর্তিত রূপ নির্মাণের চেষ্টা করেছেন।

এতে তিনি তুলে ধরেছেন নারীর চিরায়ত নির্যাতনের একটি চিত্র। যুগে যুগে নারীরা কিভাবে ভোগবাদী পুরুষের দ্বারা নির্যাতিত হয়ে আসছে তারই এক শৈল্পিক রসায়ন ফুটে উঠেছে এই নাটকে।

পাঠকের মন্তব্য
আরো পড়ুন