সিরাজগঞ্জে ছাত্রলীগের দু’পক্ষের সংঘর্ষের ঘটনার ২টি মামলা’য় ৭জন গ্রেফতার।

স্টাফ রিপোর্টার ঃ

সিরাজগঞ্জ পৌর এলাকার এক  ছাত্রলীগের সভাকে কেন্দ্র করে  গত রবিবার বিকেলে  শহরের খেদন সর্দার মোড় ও চামড়া পট্রি এলাকায়  ছাত্রলীগের  দু’গ্রুপের মিছিল হয়। এবং উভয় পক্ষের   মধ্যে সংঘর্ষ ও মারপিটের ঘটনা ঘটে। এতে জেলা ছাত্রলীগ নেতা শুভ আহম্মেদ ফালার আঘাতে গুরুতর ভাবে আহত হন। বর্তমানে সে ঢাকায় চিকিৎসাধীন অবস্হায় রয়েছেন। 

 রবিবার রাতে সদর থানায়  দু’টি মামলা দায়ের  হওয়ায়  পুলিশ ৭ জন কে গ্রেফতার করে।উক্ত মামলায় ৫১ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাতনামা আরও ১৫/২০ জনের বিরুদ্ধে সদর থানায় একটি মামলা করেন, আহত এক ছাত্রলীগ নেতার ভাই। একই থানায় আরেকটি মামলা করেন আরেক ছাত্রলীগ নেতার ভাই। গ্রেপ্তারদের মধ্যে পাঁচজনের নাম জানা গেছে। এরা হলেন শহরের খান সাহেবের মাঠ এলাকার ময়েজ উদ্দিনের ছেলে সুমন (২৮), আবু সাইদের ছেলে শরিফ (২২), দত্তবাড়ি মহল্লার আব্দুল গণির ছেলে রনি সেখ (২২), সালাম সেখের ছেলে আলহাজ সেখ (২৫) ও ময়াগোবিন্দ মহল্লার দিলজুর রহমানের ছেলে সুমন (২৫)।    

মামলার নথি থেকে জানা যায়, শনিবার বিকালে জেলা শহরের একডালা এলাকায় ৯ নম্বর ওয়ার্ড ছাত্রলীগের একটি অংশ সভা করে। ওই সভার বিষয়টি ওয়ার্ড কমিটির সাধারণ সম্পাদক মানিক মাহমুদ জানতেন না। এ কারণে সভাস্থলে গিয়ে তিনি প্রতিবাদ করেন। এরপর দুই পক্ষের মধ্যে মারপিটের ঘটনা ঘটে। এতে মানিক মাহমুদসহ অন্তত পাঁচজন আহত হন।  সিরাজগঞ্জ পুলিশ সুপার মোঃ হাসিবুল আলম বলেন, যারা আইনশৃংখলা পরিস্থিতির বিঘ্ন ঘটাবে পুলিশ তাদের বিরুদ্ধেই অ্যাকশন নেবে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে শহরের মোড়ে মোড়ে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন ও টহল জোরদার করা হয়েছে। পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত এ অবস্থা চলবে। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা সদর থানার এস আই তরিকুল ইসলাম বলেন, ছাত্রলীগ নেতা শুভ আহম্মেদকে মারপিটের ঘটনায় আহতের বড় ভাই জানপুর মহল্লার বকুল আহম্মেদ বাদী হয়ে ২ ফ্রেরুয়ারি রাতে ৫১ জনের নাম উল্লেখ এবং অজ্ঞাতনামা ১৫/২০ জনের বিরুদ্ধে থানায় মামলা দায়ের করেছেন।

ঘটনাস্থল থেকে আটক ৭ জনকে এ মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে সোমবার দুপুরে তাদের আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে বলে তিনি জানান।  আরেক মামলার তদন্ত কর্মকর্তা সদর থানার এসআই আবু জাফর বলেন, ছাত্রলীগ নেতা মানিক মাহমুদ আহত হওয়ার ঘটনায় তার চাচাত ভাই নুরনবী হাসান রতন বাদী হয়ে ২ ফ্রেরুয়ারি বিকালে জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল্লাহ বিন আহম্মেদসহ ২০ জনের বিরুদ্ধে থানায় মামলা দায়ের করেছেন। “এ মামলায় এখনও কাউকে গ্রেপ্তার করা সম্ভব হয়নি। তবে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।”

পাঠকের মন্তব্য
আরো পড়ুন