সিরাজগঞ্জে গুজবে কান না দিয়ে ধৈর্য্যধারণ করতে জেলা প্রশাসকের আহবান

বিশেষ প্রতিনিধি: মোঃ নাজমুল হোসেন

২০ নভেম্বর সকাল সারে এগারো টায় সিরাজগঞ্জ জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্য সামগ্রীর বাজার মূল্য স্থিতিশীল ও সহনীয় পর্যায়ে রাখার লক্ষে অনুষ্ঠিত জেলা টাস্কফোর্সের কমিটির জরুরি সভায় জেলা প্রশাসক ড. ফারুক আহাম্মদ বলেন চাল,পেয়াঁজ লবন সহ সকল নিত্য প্রয়ােজনীয় দ্রব্যসা মগ্রীর বাজার মূল্য স্থিতিশীল ও যৌক্তিক পর্যায়ে রাখার জন্য সকলে উদেশ্য বলেন ১৯ তারিখে লবনের বাজার মূল্য বৃদ্ধির কারণ শুধু একটি মিথ্যা গুজব বটে।

এ বিষয়ে সিরাজগঞ্জজেলা প্রশাসক, এর কার্যালয় হতে মাইকিং করা হয়েছে। জেলা প্রশাসন কর্তৃক সভাপতি, চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ড্রাস্টি, উপজেলা নির্বাহী অফিসার (সকল), সিরাজগঞ্জ জেলার বিভিন্ন এলাকার ব্যবসায়ী সভাপতি এবং সাধারণ সম্পাদক, গণমাধ্যম, রাজনৈতিক নের্তৃবৃন্দের সাথে যােগাযােগ করা হয়। ফলে মানুষের মধ্যে সচেতনতার সৃষ্টি হয়। মানুষ সজাগ হয়ে যায়।ফলে লবনের বাজার মূল্য স্বাভাবিক হয়ে ওঠে।আরোও বলেন চাল,পেয়াঁজ, লবন সহ যে কোন নিত্য প্রযােজনীয় দ্রব্যের মূল্য নিয়ে কোন অসাধু ব্যবসায়ীরা যাতে এ রকম মূল্য বৃদ্ধির গুজব বের করতে না পারে। এ ব্যাপারে সকলে সচেতনতা সবাইকে থাকার অনুরােধ জানান। এরুপ কোন মিথ্যা গুজব বের করলে তাকে আইনের আওতায় এনে কঠিন শাস্তি প্রদানের করার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।বাজারে পেঁয়াজের অবস্থা সম্পর্কে ব্যবসায়িদের উদ্দেশ্যে জেলা প্রশাসক বলেন, পেঁয়াজের গুদাম জাত, পাইকারি ও খুচরা বিক্রি মধ্যে সামঞ্জস্য রাখতে হবে। মুনাফা লাভে অতিরিক্ত মূল্যে পেঁয়াজ বিক্রি করলে তাঁর দায় সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়িকে নিতে হবে।

নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে ছদ্মবেশে প্রশাসনের লোকের বাজার পরিদর্শণ করবেন। কাজেই অধিক মুনাফার লাভের আশার চেয়ে সংকটকালীন সময়ে সেবার মানুষিকতা নিয়ে ব্যবসা করতে ব্যবসায়িদের নির্দেশনা প্রদান করেন। পরিশেষে স্ব স্ব অবস্থান থেকে এ গজব বন্ধ করার আহবান জানান তিনি। সভায় জেলা প্রশাসকে অনুমতি ক্রমে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন- অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) ফিরোজ মাহমুদ, সিরাজগঞ্জ চেম্বার অব কমার্সের সভাপতি আবু ইউসুফ সূর্য, সিরাজগঞ্জ জেলা আ.লীগের সহ সভাপতি মোঃ ইসাইক আলী,সিরাজগঞ্জ পৌরসভার প্যানেল-২মেয়র মোঃ গোলাম মোস্তাফা, সাধারণ সম্পাদক শিয়াকোল বাজারে ব্যবসায়ী আঃ খালেক, সিরাজগঞ্জ পৌরসভার সেনেটারি পরিদর্শক কাওসার আখতার দেওয়ান প্রমুখ। সিরাজগঞ্জ বিসিক শিল্পের সহকারী মহাব্যবস্থাপক লিটন চন্দ্র ঘোষ সভায় জানান চট্টগ্রামে যে পরিমান লবন মজুদ আছে তাতে দেশের চাহিদা পূরণ হয়েও বিদেশে রপ্তানী করা যাবে। ২০১৮-১৯ অর্থ বছরে লবণ মৌসুমে লক্ষ্যমাত্রার (১৬.৫৭ লক্ষ মে.টন) চেয়ে অধিক পরিমাণ অর্থাৎ ১৮.২৪ লক্ষ মে.টন লবণ উৎপাদিত হয়েছে। ১৫ নভেম্বর পর্যন্ত দেশে লবণের মজুদ ৬.৫০ লক্ষ মে.টন যা দিয়ে দেশে কমপক্ষে ৫ মাসের চাহিদা মেটানো সম্ভব। বর্তমানে চাহিদার চেয়ে অধিক লবণ মজুদ রয়েছে। চলতি ২০১৯-২০ অর্থ বছরের লবণ মৌসুমে লবণ চাষীরা ইতোমধ্যেই লবণ চাষ শুরু করেছে। তাই বর্তমানে দেশে লবণের ঘাটতি বা ভবিষ্যতে ঘাটতি সৃষ্টি সংক্রান্ত কোনো বিভ্রান্তি সৃষ্টির সুযোগ নেই। লবন শেষ হয়ে যাচ্ছে তা নিচক গুজব।

এসময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সিরাজগঞ্জ জেলা অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোঃ শরাফত ইসলাম, সহকারী কমিশনার ব্যবসা ও ব্যাণিজ্য শাখার মামুনুল হক, জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডাঃ মোঃ আখতারুজ্জামান , জেলা পরিসংখ্যান তদন্তকারী মোঃ আবুল্লাহ আল মুন্সী, জেলা তথ্য অফিসার মুহাম্মদ আবুল খায়ের,সহকারী পরিচালক, জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের মাহমুদ রহমান, জেলা মার্কেটিং অফিসার মোঃ আয়ুব আলী, কান্দাপাড়া হাট প্রতিনিধি মোঃ সোহরাব আলী সরকার, বাংলাদেশ রেস্তোরাঁ মালিক সমিতির সভাপতি ডাঃ মোঃ সাইফুল ইসলাম,সিরাজগঞ্জ সাধারণ সম্পাদক প্রেসক্লাবে ফেরদৌস রবিন।এছাড়াও জেলা প্রশাসনের বিভিন্ন বিভাগের কর্মকর্তা, ব্যবসায়ি সমিতির সদস্য, সাংবাদিকবৃন্দ।

পাঠকের মন্তব্য
আরো পড়ুন