সবজি চাষে বদলে যাচ্ছে চরাঞ্চলের কৃষকের জীবন

খাইরুল ইসলাম, (কামারখন্দ প্রতিনিধিঃ) :

সিরাজগঞ্জের কামারখন্দ উপজেলার ভদ্রঘাট ইউনিয়নের চর নূরনগর গ্রাম। এ গ্রামের পাশ দিয়ে বয়ে গেছে ফুলজোড় নদী।

ফুলজোড় নদীর কারণে আগে চাষাবাদ না হলেও কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের পরামর্শ নিয়ে মিষ্টি কুমড়া,বিটি বেগুন, বাদাম, ভূটা, গমসহ  বিভিন্ন ধরনের শাক-সবজির চাষ করে  কৃষকদের ভাগ্যের পরিবর্তন ঘটেছে। শুধুমাত্র ধান চাষের উপর নির্ভরশীল কৃষি জমিতে শাক-সবজি চাষ এনে দিয়েছে নতুন গতি। চরাঞ্চলে উৎপাদিত সবজি উপজেলায় সবজির চাহিদা মিটিয়ে আশপাশের উপজেলাগুলোতে রপ্তানী হচ্ছে। কৃষকদের জীবন জীবিকার গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখে চলেছে কৃষির এই সফল বিবর্তন।

চর নূরনগর তালপট্টি গ্রামের মৃত.শাহজাহান আলী শেখ এর ছেলে কৃষক লিটন শেখ (৪৭) জানান, ১৯৯১ সালে চাষাবাদ করে ভালো ফলন পাইনি তখন অনেক কষ্ট করে দিন পার করতে হয়েছে। তবে ২০০৭ সাল থেকে উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের পরামর্শ নিয়ে ধান,  গম, মুঘকালাই, সরিষা, চিনাবাদাম, বিটি বেগুন পেঁপে, তরমুজসহ বিভিন্ন ফসল চাষাবাদ করে লাভের মুখ দেখছি। আমার ছেলে-মেয়ে পড়াশোনাসহ সংসার খরচ বাদ দিয়ে বছরে ১ লাক্ষ টাকা আয় হয়। তিনি আরো জানান, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মাঝে মাঝেই চর এলাকা পরিদর্শন করে মাটির আর্দ্রতা, ফসলের পরিচর্যা  করার বিষয়সহ বিভিন্ন ধরনের পরামর্শ দেন এছাড়া প্রয়োজন অনুযায়ী উপজেলায় ট্রেনিং এর ব্যবস্থা করায়।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আনোয়ার সাদাত জানান, চরঞ্চলের কৃষক জমিতে বিভিন্ন ধরনের সবজি চাষ করে লাভবান হচ্ছেন। কৃষকদের বিষমুক্ত সবজি চাষের পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে। এছাড়া কৃষি অফিসের মাধ্যমে কৃষি প্রণোদনা, রাজস্ব খাতের অর্থায়নে বাস্তবায়নসহ উপজেলা পরিষদের এডিপি খাত থেকে নানা ধরনের সহযোগিতা করা হচ্ছে।
তিনি আরো জানান, উপজেলায় চীনা বাদাম ১০ হেক্টর, মিষ্টি কুমড়া ৪০ হেক্টর, ভুট্টা ১০২ হেক্টর এবং বিটি বেগুন ১ হেক্টর জমিতে চাষ করা নির্ধারণ করা হয়েছে।

পাঠকের মন্তব্য
আরো পড়ুন