রায়গঞ্জের অজপাড়ায় শিক্ষার আলো ছড়াচ্ছে দেউলমুড়া এন আর টেকনিক্যাল ইনস্টিটিউট

শুভ কুমার ঘোষ, সিরাজগঞ্জঃ

সিরাজগঞ্জের রায়ঞ্জের পাঙ্গাসী ইউনিয়নের অজপাড়া গাঁয়ে শিক্ষার আলো ছড়িয়ে যাচ্ছে দেউলমুড়া এন আর টেকনিক্যাল ইনস্টিটিউট। এ অঞ্চলের নিম্নবিত্ত ও কৃষক পরিবারের সন্তানদের কর্মমূখী শিক্ষার পাশাপাশি উচ্চশিক্ষার প্রাথমিক সোপানে নিয়ে যেতে কাজ করছে এ প্রতিষ্ঠানটি। সম্প্রতি এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটিকে এমপিওভুক্ত করায় শিক্ষার্থীর পাশাপাশি এলাকাবাসীর মুখেও হাসি ফুটে উঠেছে। স্বস্তির নিঃস্বাস ফেলেছে দীর্ঘদিন ধরে পরিশ্রম করে প্রাতিষ্ঠানকে গড়ে তুলতে কাজ করে যাওয়া শিক্ষক-কর্মচারীরা। সরেজমিনে জানা যায়, রায়গঞ্জের ৮নং পাঙ্গাসী ইউনিয়নের অজপাড়া গ্রাম দেউলমুড়া। এ গ্রামের খেঁটে খাওয়া মানুষগুলোর সন্তানদের প্রাথমিক শিক্ষার স্তর পেরিয়ে উচ্চ শিক্ষার ব্যবস্থা করা ছিল খুবই কস্টকর।

এখানকার সাধারণ মানুষ নিজের ছেলেমেয়েদের উচ্চ শিক্ষার কথা চিন্তাও করতে পারতো না। এমনই এক সময়ে এলাকার হতদরিদ্র কৃষকের সন্তানদের মাঝে শিক্ষার আলো ছড়াতে এগিয়ে আসেন দেউলমুড়া গ্রামের রফিকুল ইসলাম নান্নু নামে এক শিক্ষানুরাগী ব্যক্তি। তিনি নিজ উদ্যোগে ২০০৮ সালে এ প্রতিষ্ঠানটি গড়ে তোলেন। নিজের জমি প্রতিষ্ঠানের নামে লিখে দিয়ে টিনের ঘর নির্মাণ করে চালু করেন শিক্ষা কার্যক্রম। দীর্ঘ ১১ বছর ধরে শত শত শিক্ষার্থীর জীবন গড়তে কাজ করে এ প্রতিষ্ঠানটি। দীর্ঘদিন টিনের ঘরে অতিকষ্টে শিক্ষা কার্যক্রম চালানো হচ্ছিল। তবে চলতি বছর একটি ভবন বরাদ্দ পায়। ভবনটির নির্মাণকাজ প্রায় শেষের দিকে রয়েছে। চলতি বছর গত ২৩অক্টোবর সরকার একযোগে সারাদেশে যোগ্য দুই হাজার সাত শত ত্রিশটি প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত করে। এর মধ্যে দেউলমুড়া এন আর টেকনিক্যাল ইনস্টিটিউটটিও এমপিওভুক্ত হয়। দেউলমুড়া এন আর টেকনিক্যাল ইনস্টিটিউটের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মো. আল-মাহমুদ জানান, বর্তমানে এ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটিতে ৪৫০ জন শিক্ষার্থী রয়েছে।

গত কয়েক বছর ধরেই অর্ধশতাধিক পরীক্ষার্থী এখান থেকে পাবলিক পরীক্ষায় অংশ নেয় এবং ভাল ফলাফল করে। ২০১৮ সালে এইচএসসি বিএম শাখায় ৫৬ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ৩৯ জন পাশ করেছে। প্রতিষ্ঠাতা রফিকুল ইসলাম নান্নু বলেন, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটি দাড় করাতে দীর্ঘদিন ধরে ১০ জন শিক্ষক-কর্মচারী শ্রম দিয়ে আসছেন। এমপিওভুক্ত হওয়ায় শিক্ষক কর্মচারীদের মুখে হাসি ফুটে উঠেছে। এখন পূর্ণদ্যোমে এখানে শিক্ষার্থীদের পাঠদান করা হবে। আশা করছি উপজেলার মধ্যে অন্যতম প্রতিষ্ঠান হিসেবে দাড় করাতে কাজ করবে শিক্ষক-কর্মচারীরা।

পাঠকের মন্তব্য
আরো পড়ুন