বেলকুচিতে পিআইও অফিসের বাস্তবায়নাধীন উন্নয়ন প্রকল্পে জেলা পরিষদের ফলক : এলাকায় চাঞ্চল্য

আবির হোসাইন শাহিন,নিজস্ব প্রতিবেদক :

সিরাজগঞ্জের বেলকুচি উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার (পিআইও) দপ্তর থেকে বাস্তবায়িত উন্নয়ন প্রকল্পে জেলা পরিষদের ফলক লাগানোর ঘটনায় ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। তবে অবস্থা বেগতিক দেখে সংশ্লিষ্টরা ফলকটি খুলে ফেলতে বাধ্য হয়েছে। শনিবার বিকেলে ফলকটি লাগানো হলেও রোববার ভোরে তা খুলে ফেলা হয়। সংশ্লিষ্ট দপ্তর ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, বেলকুচি উপজেলো প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার (পিআইও) কার্য্যালয় থেকে ২০১৮-১৯ অর্থ বছরে গ্রামীণ অবকাঠামো রক্ষনাবেক্ষন প্রকল্পের (টিআর) আওতায় পৌর এলাকার সুবর্ণসারা কবরস্থানের সীমানা প্রাচীর নির্মানের জন্য দুই লক্ষ টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়। বরাদ্দকৃত অর্থে প্রকল্প কমিটির সভাপতি গোলাম আজম মন্ডল ও সেক্রেটারী আবদুল হাকিম মন্ডলের তত্বাবধানে প্রায় ১৬০ ফুট দৈর্ঘ্য ও সাড়ে ৮ ফুট প্রস্থ প্রচীরটি ইট ও রড দিয়ে এক মাস ধরে নির্মান করা হয়। কিন্তু হঠাৎ করে শনিবার বিকেলের দিকে কবরস্থানের প্রবেশ পথের ডান পার্শ্বে জেলা পরিষদের বাস্তবায়নে ২০১৮-২০১৯ইং অর্থ বছরে ১ লক্ষ টাকা ব্যায়ে সুবর্ণ সাড়া কবরস্থান উন্নয়ন ফলক লাগানো হয়। ফলকটিতে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের নাম হিসেবে এসএ আইয়ুব আনছারী লেখা ছিল।

এ নিয়ে এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্য ও সমালোচনার সৃষ্টি হলে রোববার ভোরে ফলকটি খুলে ফেলে সংশ্লিষ্টরা। এবিষয়ে ওই ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের টিটু মিয়া মোবাইল ফোনে জানান, ফলকে লেখা প্রকল্প উন্নয়নে জেলা পরিষদ থেকে এক লাখ টাকা বরাদ্দ ছিল। কিন্তু আমরা কাজ করতে পারিনি। জেলা পরিষদের স্থানীয় সদস্য আবদুল হামিদ কমান্ডার ও কবরস্থান কমিটির সভাপতি ছোবহান আলীর কথা মত ফলকটি লাগানে হয়েছিল। এটা নিয়ে আমি আর বেশি কিছু বলতে চাই না। তাদের সাথে কথা বলেন সব জানতে পারবেন। তবে এবিষয়ে জানতে জেলা পরিষদের সদস্য আবদুল হামিদের মোবাইলে একাধিকবার যোগাযোগ করে তার তা বন্ধ পাওয়া যায়।

এবিষয়ে স্থানীয় কয়েকজন সমাজ সেবক জানান, জেলা পরিষদ থেকে করবস্থান উন্নয়নের নামে যারা প্রকল্প এনে অর্থ আতৎসাতের পায়তারা করছে তাদের বিরুদ্ধে দ্রুত ব্যবস্থা নেয়া হোক। এবং বরাদ্দকৃত অর্থ দিয়ে দ্রুত কাজ সমাপ্তের দাবি করছি। এব্যাপারে বেলকুচি উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) জাকির হোসেন জানান, সুবর্ণ সাড়া কবরস্থানের সীমানা প্রচীর প্রকল্পটির কাজ ২০১৮-১৯ অর্থ বছরের টিআর প্রকল্প থেকে ২ লাখ টাকা ব্যায়ে করা হয়েছে। এখানে ফলক থাকলে আমাদের অফিসের থাকবে কিন্তু কে বা কারা জেলা পরিষদের উন্নয়ন ফলক লাগিয়েছে। পরে শুনলাম স্থানীয়দের তোপের মুখে ফলকটি আবার খুলেও ফেলছে।

পাঠকের মন্তব্য
আরো পড়ুন