বুলবুল’র প্রভাবে ঝিড়ি ঝিড়ি বৃষ্টি, অসহায় ইট ভাটা ব্যবসায়ীরা, জনজীবনে দূর্ভোগ

শুভ কুমার ঘোষ, সিরাজগঞ্জঃ

ঘূর্ণিঝড় বুলবুল’র প্রভাব থেকে বাদ পড়েনি অনেক জেলার মতো সিরাজগঞ্জও। গতকাল শুক্রবার দুপুর পর থেকে শুরু হয়েছে হালকা বৃষ্টিপাত। বিকালের দিকে একটু বিরতি দিলেও সন্ধ্যায় আবারও আগের রূপে ফিরে ঝরে চলেছে সারারাত। সেই প্রভাব চলছে এখনও, হালকা হলেও ঝরে চলেছে অবিরাম। যার প্রভাবে দূর্ভোগে পড়েছেন সাধারন মানুষ। প্রভাব পড়েছে অনেকের জীবিকার উপরেও। জেএসসি সহ কিছু পরীক্ষা বন্ধ থাকলেও দুর্ভোগের শিকার হচ্ছেন অন্যান্য ছাত্র-ছাত্রীরা, উপস্থিতিও কম সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে। বাজারে শীতের নতুন সবজি আসতে শুরু করলেও নিত্য প্রয়োজনীয় ও কাচা বাজার ঘুরেও খুব বেশি ক্রেতার উপস্থিতি দেখা যায়নি, ব্যাবসা প্রতিষ্ঠান খোলা রেখেই খোশগল্পে মেতে আছেন অনেকেই।

সরকারী ছুটির দিন হওয়াতে এবং অবিরত বৃষ্টির কারনে অনেকেই চাইছেন না বিনা প্রয়োজনে বাইরে বের হতে। বেসরকারী প্রতিষ্ঠান গুলোতেও অনেক কর্মকর্তা-কর্মচারীর উপস্থিতি কম। বিপাকে পড়েছেন বিপনন প্রতিষ্ঠান গুলোর বাজারজাতকরণের কর্মকর্তারাও। যার প্রভাব পড়েছে দিন আনা দিন খাওয়া ক্ষুদ্র ব্যাবসায়ী, রিকশা ও অটোরিকশা চালকদের উপরেও। হযরত নামে এক রিকশা চালক অনেকটা দুঃখ নিয়েই বলেন, এরকম বৃষ্টিতে মানুষ কাজ ছাড়া বাইরে আসপো কে কন, আর যার কারনে বৃষ্টিতে ভিজেও এরম দিনে বাড়ির লাগে বাজার করনের টেহা ডাও হয়না ঠিকমতো। তবে এই অনাকাঙ্ক্ষিত বৃষ্টিতে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে ইট ভাটা ব্যবসায়ী গণ। যার প্রভাব পড়ছে রড সিমেন্ট ও উন্নয়ন জাতীয় পন্যের বাজারেও। প্রায় সবাই মাটি দিয়ে কাচা ইট প্রস্তুত করেছিলেন, ছিলেন পোড়ানোর অপেক্ষায়। কিন্তু তাতে গুড়ে বালি দিয়ে দিলেন এই অনাকাঙ্ক্ষিত বৃষ্টি।

ব্যাবসায়ীদের বক্তব্য এই প্রভাব কাটিয়ে উঠে পানি শুকিয়ে ভাটা উৎপাদন এর জন্য প্রস্তুত করতে আরও কয়েকদিন সময় লেগে যাবে। আমরা অন্তত আরও ৭দিন পিছিয়ে গেলাম। কাচামাটির ইট গুলো ঢেকে রাখলেও অনেক ইট নষ্ট হবে বলেও আশঙ্কা করছেন তারা। এর আগে দুদিনের বৃষ্টিতে আমরা প্রায় ১৫দিন পিছিয়ে গিয়েছি বলেও জানান কেও কেও। তবে এই বৃষ্টিতে কিছুটা ভিন্ন রূপ ও দেখা গেছে কোথাও কোথাও। অনেক জায়গাতেই যেন দিনটা পালন হচ্ছে হাসি, আড্ডা আর খোশগল্পে পার করার জন্য। বাইরে কাজ থাকলেও করা সম্ভব হচ্ছেনা এসকল মানুষগুলো যেন অনেকটা অসহায় হয়েই বাধ্য হচ্ছেন বৃষ্টিকে একটু উপভোগ করতে।

পাঠকের মন্তব্য
আরো পড়ুন