বনলতার ট্রেনের ২১টি জানালার কাচ ভাংচুর, আটক – ৫

আজিজুুর রহমান মুন্না সিরাজগঞ্জ ঃ

আন্ত:নগর ট্রেন ‘বনলতা’ থেকে ভিক্ষুককে ফেলে দেওয়ার কেন্দ্র করে যাত্রীরা পাথর ছুড়ে ট্রেনের ২১টি জানালার কাচ ভাংচুরের ঘটনা ঘটেছে।

আটককৃতরা হলেন- পাবনার আটঘরিয়া থানার রামচন্দ্রপুর গ্রামের মান্নান আলী ছেলে মহরম আলী (৩২), সিরাজগঞ্জে উল্লাপাড়া গ্রামের গুচ্ছ গ্রামের তালেব আলীর ছেলে রুবেল হোসেন (২১), উল্লাপাড়ার দহকুলা গ্রামের মোমিন আলীর ছেলে কাওছার আলী (২০), উল্লাপাড়ার আরংজানি গ্রামের বাহাদুর সরকারের ছেলে হোসেন আলী (১৮) ও কামারখন্দ উপজেলার নান্দিনামধু গ্রামের ওয়াহেদ আলী ছেলে আলামিন (১৬)। জানা যায়, শনিবার (১১ জানুয়ারী ২০২০) সকাল ১০টায় রাজশাহী থেকে ঢাকাগামী আন্ত:নগর ‘বনলতা’ ট্রেন সিরাজগঞ্জ বঙ্গবন্ধু পশ্চিম রেলওয়ে স্টেশনে চেকআপের জন্য দাড়ানোর অবস্থায় থাকায় পাবনা জেলার চাটমোহর উপজেলার মুলগ্রাম ইউনিয়নের খতবাড়ি গ্রামের আজহার আলী (৭০) নামে এক ভিক্ষুককে নিচে ফেলে দেয় ট্রেনের দায়িত্বরত ক্যারেজ এটেনডেন্ট আব্দুল বারী। ভিক্ষুক পাথরের উপরে পড়ে মাথায় ও পায়ে ক্ষত হলে ৩নং লাইনে দাড়িয়ে থাকায় ঈশ্বরদী-ঢাকা গামী মেইল ট্রেনের যাত্রীরা ‘বনলতা’ টেনের ক্যারেজ  এটেনডেন্ট আব্দুল আলীমের দিকে পাথর ছোড়ার কারণে ট্রেনের ২১টি জানালার কাচ ভেঙ্গে যায়। তাৎক্ষণিকভাবে রেলওয়ে কর্তব্যরত পুলিশ ৫ জনকে আটক করে বঙ্গবন্ধু সেতু পশ্চিম থানায় কারাগারে প্রেরণ করে। ভিক্ষুক আজাহার আলীকে রেলওয়ে পুলিশ উদ্ধার করে সিরাজগঞ্জ ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করেছে।

বঙ্গবন্ধু সেতু পশ্চিম থানার ভারপ্রাপ্ত অফিসার ইনচার্জ সৈয়দ শহীদ আলম বলেন, আটককৃত ৫জনকে রেলওয়ে পুলিশ আটক করে বঙ্গবন্ধু সেতু পশ্চিম থানায় এনেছে। রেলওয়ে পুলিশই এবিষয়ে মামলা দায়ের করবে। সিরাজগঞ্জ সদর জিআরপি থানার এসআই রঞ্জন জানান, রেলওয়ের সরকারি সম্পত্তি ভাংচুরের অপরাধে ৫জনকে আটক করেছি। এবিষয়ে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

পাঠকের মন্তব্য
আরো পড়ুন