পুলিশ সদস্যদের বিরুদ্ধে মামলা, কারাগারে প্রেরণ


শরিফুল ইসলাম, টাঙ্গাইল :

টাঙ্গাইল জেলার সখিপুর উপজেলার হাতিবান্ধা ইউনিয়নের ভাতকুড়াচালা গ্রামের মো. ফরহাদ মিয়ার ছেলে বজলু মিয়াকে পকেটে ইয়াবা দিয়ে আটকের চেষ্টা করেছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। ইয়াবা দিয়ে ফাঁসানোর সময় ৩ পুলিশ সদস্য ও সোর্সকে হাতে নাতে আটক করেছে এলাকাবাসী। ক্ষুদ্ধ জনতা ওই ৩ পুলিশ সদস্য ও ১ সোর্সকে আটক করে গনধোলাই দেয়। পরে পুলিশ কর্মকর্তা ও স্থানীয় প্রভাবশালী ব্যক্তিদের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়।

বৃহস্পতিবার (২৮ নভেম্বর) সন্ধ্যায় টাঙ্গাইল জেলার সখিপুর উপজেলার হাতিবান্ধা ইউনিয়নের হতিয়া রাজাবাড়ী গার্লস স্কুল সংলগ্ন বাজারে তাদের আটক করে এলাকাবাসী। এ ঘটনায় আরও ২ পুলিশ সদস্য পলাতক রয়েছে বলে জানা গেছে।

আটককারী পুলিশ সদস্যরা হলেন, টাঙ্গাইল জেলার মির্জাপুর উপজেলার বাঁশতৈল ফাঁড়ির এএসআই রিয়াজুল ইসলাম রিয়াজ, কনস্টেবল রাসেল আহম্মেদ ও গোপাল সাহা। এ ঘটনার সাথে তোজাম্মেল ও হালিম নামের ২ পুলিশ সদস্য পলাতক রয়েছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, বাঁশতৈল পুলিশ ফাঁড়ির পুলিশরা দীর্ঘদিন যাবৎ ঐ এলাকার সাধারণ জনগণের পকেটে ইয়াবা দিয়ে গ্রেপ্তার করে আসছে এবং তাদের ছুটাতে প্রায় একেক জনের কাছ থেকে লক্ষাধিক টাকা হাতিয়ে নিতো।

২৮ নভেম্বর সন্ধ্যা ৬টার দিকে সিনএজি যোগে ঐ গ্রামে ঢুকে পুলিশ সদস্যরা। ঐ ইউনিয়নের ভাতকুড়াচালা গ্রামের মো. ফরহাদ মিয়ার ছেলে বজলু মিয়াকে পকেটে ইয়াবা দিয়ে আটকের চেষ্টা করে পরে বজলুর ডাক চিৎকারে এলাকাবাসী ৩ পুলিশ সদস্য ও সোর্সকে আটক করে গণধোলাই দেয়। এ সময় দুই পুলিশ সদস্য ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যায়। খবর পেয়ে সখিপুর থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন।

এ ঘটনায় সখিপুর থানায় মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে এএসআই রিয়াজ, কনস্টেবল রাসেল আহমেদ, গোপাল সাহা, পলাতক তোজাম্মেল ও হালিমসহ ৫ পুলিশ সদস্য এবং দুই সোর্সসহ মোট ৭ জনের মামলা দায়ের করা হয়েছে।

তাদেরকে শুত্রবার ২৯ নভেম্বর টাঙ্গাইল জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন সখিপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মো. আমির হোসেন।

এ বিষয়ে সহকারি পুলিশ সুপার (মির্জাপুর সার্কেল) দীপংকর রায় ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ঘটনাস্থল থেকে তাদের উদ্ধার করে সখিপুর থানায় রাখা হয়েছে এবং পরবর্তীতে তাদের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

পাঠকের মন্তব্য
আরো পড়ুন