নিষিদ্ধ সাকিব স্তম্ভিত কোটি ভক্ত

আবির হোসাইন শাহিন :

এক ক্রিকেট জুয়াড়ির কাছ থেকে অনৈতিক প্রস্তাব পেয়ে তা গোপন করায় ক্রিকেটের সর্বোচ্চ নিয়ন্ত্রক সংস্থা আইসিসির দুই বছরের নিষেধাজ্ঞায় পড়েন সাকিব আল হাসান। তবে ভুল স্বীকার করায় তার এক বছরের শাস্তি কমানো হয়েছে।

২০২১ সালের ২৯ শে অক্টোবরের আগে আর বাংলাদেশের জার্সিতে মাঠে নামতে পারবেন না এই তারকা অলরাউন্ডার। আইসিসির পক্ষ থেকেই এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে এ তথ্য জানানো হয়েছে। শাস্তির বিরুদ্ধে আপিল করতে পারবেন সাকিব। ২০১৮ আইপিএলে এবং সেই বছরের জানুয়ারিতে বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কা ও জিম্বাবুয়ের মধ্যকার ত্রিদেশীয় ওয়ানডে সিরিজে মোট ৩ বার ম্যাচ পাতানোর প্রস্তাব পেয়েছিলেন সাকিব। আইপিএলে ২৬শে এপ্রিল হায়দরাবাদ-পাঞ্জাবের মধ্যকার ম্যাচ পাতানোর কথা উল্লেখ করেছে আইসিসি। কিন্তু আইসিসির দুর্নীতি দমন ইউনিট আকসুর কাছে বিষয়টি জানাননি সাকিব। এই কারণে আর্টিকেল ২.৪.৪ অনুযায়ী শাস্তি পেলেন সাকিব।

২০১৫ সালে চেন্নাই সুপার কিংসের হয়ে ম্যাচ ফিক্সিং করেন ধোনি সহ পুরো টিম, তখন কোন ক্রিকেটার কে নিষিদ্ধ করা হয়নি, শুধুমাত্র চেন্নাই সুপার কিংস কে দুই বছরের জন্য নিষিদ্ধ করা হয়, অথচ আমাদের আশরাফুল জাতির কাছে ক্ষমা চাওয়ার পরেও তাকে ৫ বছরের নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়, আজ সাকিব !!! ম্যাচ ফিক্সিং না করেও, শুধুমাত্র প্রস্তাব পেয়ে না জানানোর কারনে ২ বছরের জন্য নিষিদ্ধ ! তাও এতদিন কেও কিছুই জানতনা, যখন সাকিব ক্রিকেটারদের দাবি দাওয়া নিয়ে কথা বলতে গেলেন তখনই সে হয়ে গেল ভিলেন ।

পাঠকের মন্তব্য
আরো পড়ুন