দুশ্চিন্তায় যমুনা চরাঞ্চলের মানুষেরা

ইমরান হোসেন আপন, চৌহালী (সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধিঃ

বর্ষার মৌসুম সমাগত- তাই এখন থেকেই সিরাজগঞ্জের চৌহালী উপজেলার চরাঞ্চলের মানুষ চিন্তায় পড়ে গেছেন। বর্ষার মৌসুমে চরাঞ্চলের বাসিন্দারা ছয় মাস বেকার থাকে। যে দিক চোখ যায় সে দিকেই পানি থৈ থৈ করে। ফলে কোনো কাজের সুব্যবস্থা থাকে না। দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে সরকার নানান সুবিধা দিলেও চরাঞ্চলের বাসিন্দাদের কাছে তা পৌছায় না। আর সরকার কী সুবিধা দিচ্ছে তাও অনেকেই জানেন না। ধু-ধু বালু চর পাড়ি দিয়ে দুর্গম চরে ঘোড়ার গাড়ীর মাধ্যমে আনা নেয়া করা হচ্ছে মালামাল। শুধু কি তাই, নদীর হাঁটু ও গলা পানি সাতরিয়ে কুলে ওঠছে মালবাহী ঘোড়ার গাড়ী। চৌহালী উপজেলার মধ্যে দিয়ে প্রাহিত যমুনা নদীতে চর জেগে ওঠায় নৌ চলাচল বন্ধ। এ কারণে পণ্য পরিবহনে ঘোড়ার গাড়ি আর যাত্রী বহনে ব্যবহৃত হচ্ছে ভাড়ায় চালিত মটরসাইকেল। চরাঞ্চলে নির্দিষ্ট সড়ক না থাকায় বালু পথে যাত্রী ও পণ্য পরিবহনে বেশ বেগ পোহাতে হয় গাড়ির চালকদের। এ সকল যানবাহন ব্যাবহার করে বা পায়ে হেটে ও নৌকায় চরাঞ্চল থেকে হাট বাজারে কেবা-বেচা জন্যে আসা-যাওয়া করতেই দিন চলে যায়।

শুস্ক মৌসুমে চরবাসী পরিবারের সকল সদস্যদের নিয়ে চাষাবাদসহ অন্যান্য ফসল উৎপাদনে মহাব্যস্ত পার করে। কিন্তু বোরো ধান চাষাবাদে শ্রমিক মজুরি দিয়ে ন্যায্য মূল্য না পাওয়ায় এখন তারা ধান চাষাবাদে আগ্রহ হারিয়ে ফেলছে। এরপরও যারা বোরো জমি চাষ করছে তারা শুধু বিকল্প কর্মসংস্থান না থাকায় কোনো রকমে চলার জন্য চাষাবাদ করে। বর্ষার সময় চরের ৮০ ভাগ মানুষ পানিবন্দি ও বেকার থাকে। বাঘুটিয়া ইউনিয়নের ঘুশুরিয়া গ্রামের জেলে রফিকুল ইসলাম বলেন, আমার ৫সদস্যর সংসার মৎস্য শিকার করেই আমার দীনাতিপাত চলে, উমারপুর ইউনিয়নের হাপানিয়া চরের ছালাম ও অন্যান্যরা বলেন, বালুরচরে বোরো চাষাবাদ করা হয় জীবন বাচানো জন্য। এখারে তিল,কাইন, বাদাম ও সবজি চাষও হয়। কেউবা বাড়ী বাড়ী মাটিকাটার কাজ করে সংসার চালায়। ঘোড়জান ইউনিয়নের মুরাদপুর গ্রামের কৃষক জাহাগীর বলেন, আমরা চরের মানুষ কি ভাবে বেচে আছি কি আবাদ করছি কেউ খবর রাখে না, বোরো আবাদ করে খরচ বেশী তাই বিকল্প হিসেবে অন্যন্য্যা ফসলের চাষ করে বেচে আসি,তবে হাট বাজার ও শহরে যাতায়াতের জন্য বালুর চর পারি দিয়ে অতিকষ্ট মটরসাইকেল,মালামালের জন্য ঘোড়ার গাড়ি ব্যবহার করতে হচ্ছে।

এছাড়াও বিভিন্ন চরাঞ্চলের বাসিন্দা বলেন, যোগাযোগ ব্যবস্থার ওপর নির্ভর করে চরাঞ্চলের মানুষ মানব সম্পদে পরিনত হতে পারত। চরাঞ্চলে শিক্ষা ব্যবস্থা নড়বড়ে,২/১ জন শিক্ষক দিয়ে চলে পাঠদান কার্যক্রম প্রশাসনের নজর নেই, চরাঞ্চলে সড়ক পথ ও কর্মসংস্থানের সুযোগ না থাকায় এই মানবসম্পদ দিন দিন সমাজের বোঝা হচ্ছে। নদী ও চর শাসন করে যোগাযোগ ব্যবস্থা, মিল ও কারখানা স্থাপন করলে হাজার হাজার মানুষ বেকার থাকত না। বর্ষায় কিছু লোকজন ডিঙি নৌকা দিয়ে মাছ ধরে, বড় ইনিঞ্জনচালিত নৌকা চালিয়ে তাদের জীবন যাপন করে। চৌহালী উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বলেন, চরাঞ্চল বাসীর প্রতি আমার সূ-দৃষ্টি থাকে। গত বর্ষায় বিভিন্ন খাত থেকে প্রায় ১শত ৭০ মে:ট্রন চাউল ও ১১শত পেকেট ত্রান সামগ্রী বিতরন করেছি। দিতপুর, ঘোরজান, চর হয়ে নয়াপাড়া পর্যন্ত পাকা রাস্তা করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি ।

পাঠকের মন্তব্য
আরো পড়ুন