দুই দিনে ১১টি বাল্যবিবাহ বন্ধ করে আবারও চাঞ্চল্যের সৃষ্টি করলেন এসিল্যান্ড আনিসুর রহমান

শুভ কুমার ঘোষ, সিরাজগঞ্জঃ

দুইদিনে টানা ১১টি বাল্যবিবাহ বন্ধ করে আবারও অনন্য নজির সৃষ্টি করলেন সিরাজগঞ্জ সদরের সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ আনিসুর রহমান।

সিরাজগঞ্জ সদরে দুইদিনে ১১জন স্কুলছাত্রীকে বাল্যবিবাহ থেকে রক্ষা করেছেন সদরের সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ আনিসুর রহমান। বুধবার দুপুর থেকে গভীর রাত পর্যন্ত এবং শুক্রবার বিকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত অভিযান চালিয়ে অভিযান চালিয়ে এ বাল্যবিবাহগুলো বন্ধ করা হয়। প্রথমে বুধবার দুপুর ২.৩০ টায় সিরাজগঞ্জ সদরের ছোনগাছা ইউনিয়নের গুপিরপাড়া গ্রামের অষ্টম শ্রেণীর ছাত্রী তানজিলা খাতুন সিমা (১৪), বিকাল ৩.৩০ টায় পশ্চিম গুপিরপাড়া গ্রামে অষ্টম শ্রেণীর ছাত্রী মোছাঃ মিম খাতুন (১৪), সন্ধ্যা ৬ টায় কালিয়া হরিপুর ইউনিয়নের কান্দাপাড়া গ্রামে পঞ্চম শ্রেনীর ছাত্রী মাসুদা খাতুন (১৩), সন্ধ্যা ৬.৩০ টায় খোকশাবাড়ী ইউনিয়নের তেলকুপি গ্রামে অষ্টম শ্রেণীর ছাত্রী ময়না খাতুন (১৪), রাত ৮টায় ছোনগাছা ইউনিয়নের ছোনগাছায় নবম শ্রেনীর ছাত্রী ফারজানা খাতুন (১৫), রাত ৯.৩০ টায় বাগবাটি ইউনিয়নের হরিপুর গ্রামে দশম শ্রেণীর ছাত্রী মোছাঃ জান্নাতী খাতুন (১৫) এবং রাত ১১ টায় পৌরসভার কোবদাসপাড়ায় ইউনিয়নের নবম শ্রেণীর ছাত্রী কবিতা খাতুন কিয়ামী (১৪) এর বাল্যবিবাহ বন্ধ করা হয়। এবং শুক্রবারে প্রথমে বিকাল ৫টায় সিরাজগঞ্জ সদরের খোকশাবাড়ী ইউনিয়নের তেলকুপি গ্রামের অষ্টম শ্রেণীর ছাত্রী সুমি খাতুন (১৩), সন্ধ্যা ৬টায় পৌরসভার হোসেনপুরে নবম শ্রেণীর ছাত্রী মোছাঃ সুবর্ণা খাতুন (১৪), রাত ৮ টায় রতনকান্দি ইউনিয়নের শ্যামপুর গ্রামে অষ্টম শ্রেনীর ছাত্রী মাসুদা খাতুন (১৩), রাত ৯টায় রতনকান্দি ইউনিয়নের কৃঞ্চজীবনপুর গ্রামে দশম শ্রেণীর ছাত্রী মুক্তি খাতুন (১৬) এর বাল্যবিবাহ বন্ধ করা হয়।
আদালত সূত্রে জানা যায়, বুধবার দুপুরে হতে গভীর রাত পর্যন্ত এবং শুক্রবার দুপুর হতে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে বাল্যবিবাহ গুলো বন্ধ করা হয়। সবগুলো বাল্যবিবাহেই কণে অপ্রাপ্তবয়স্ক এবং একটিতে বর ও কনে উভয়ই অপ্রাপ্তবয়স্ক। বাল্যবিবাহগুলো বন্ধ করে সর্বমোট ১লক্ষ ২৫হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। প্রত্যেক প্রযোজ্য ক্ষেত্রে কনের বাবা ও বরের বাবার কাছ থেকে কনে ও বর প্রাপ্তবয়স্ক না হওয়া পর্যন্ত বিবাহ দিবেন না বলে মুচলেকা নেয়া হয়। বাল্যবিবাহগুলো বন্ধে সহযোগিতা করেন পেশকার মিলন সরকার, আঃ সাত্তার, নূরে এলাহী ও আনসার ব্যাটালিয়নের সদস্যবৃন্দ।

উল্লেখ্য যে, এর আগেও ১১ঘন্টায় ৭টি বাল্যবিবাহ বন্ধ করে এবং বাল্যবিবাহ বন্ধে শতক পার করে অনন্য নজির সৃষ্টি করেন সদরের সুযোগ্য সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আনিসুর রহমান।

পাঠকের মন্তব্য
আরো পড়ুন