কাজিপুরে মেঘাই-নাটুয়ারপাড়া নৌবন্দর উপসচিবের পরিদর্শন

কাজিপুর  (সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধিঃ

শনিবার সিরাজগঞ্জের কাজিপুর উপজেলার সদর মেঘাই নৌঘাট ও নাটুয়ারপাড়া নৌঘাট নৌবন্দর এলাকা পরিদর্শন করেন নৌ পরিবহন মন্ত্রণালয়ের উপ-সচিব মোঃ আনোয়ারুল ইসলাম। তার সাথে সফর সঙ্গী ছিলেন বিআইডব্লিউটিএ’র পরিচালক (সিএন্ডপি) মোঃ শাহজাহান, অতিরিক্ত পরিচালক (বন্দর) মুহাম্মাদ রফিকুল ইসলাম, অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী (ড্রেজিং) মোঃ রফিকুল ইসলাম তালুকদার এবং তত্ত্বাধায়ক প্রকৌশলী (সিভিল) মোঃ সাজেদুর রহমান।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন কাজিপুরের উপজেলা নির্বাহী অফিসার জাহিদ হাসান সিদ্দিকী, উপজেলা চেয়াম্যান খলিলুর রহমান সিরাজী, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ্জ্ব মোজাম্মেল হক বকুল সরকার, ভাইস চেয়ারম্যান দ্বীন মোহাম্মাদ বাবলু, উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আলহাজ্জ্ব শওকত হোসেন সাকার, কাজিপুর সদর ইউপি চেয়ারম্যান টিএম আতিকুর রহমান, নাটুয়ারপাড়া ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল মান্নান চাঁন প্রমুখ। কাজিপুরবাসীর অনেক দিনে প্রত্যাশা পূরণ হতে চলেছে, কাজিপুরবাসীর স্বপ্ন ছিল যমুনার করাল গ্রাস থেকে রক্ষা পাবে এবং একটি নদী বন্দর প্রতিষ্ঠিত হবে। তারই ধারাবাহিকতায় সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মাদ নাসিম এমপি মহোদয়ের একান্ত প্রচেষ্টায় সাবেক নৌ পরিবহন মন্ত্রী শাহজাহান খানের সহযোগীতায় বর্তমান নৌ পরিবহন মন্ত্রীর সুদৃষ্টি থাকায় এই নদী বন্দর বাস্তবে রূপদান পেতে যাচ্ছে ৩২ নং নৌবন্দর। সফরত অতিথিগন নাটুয়ারপাড়া নদী ঘাটে মতবিনিময় কালে কাজিপুরের পক্ষে কিছু দাবি তুলে ধরেন বর্তমান ও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান মহোদয়গন। দাবিগুলো হলো-কাজিপুর যমুনা নদীর তীর সংরক্ষন করে বন্দরের জায়গাটা স্থায়ীকরন এবং যেখানে একটি রাস্তা সরিষাবাড়ী জামালপুর হয়ে ঢাকার সাথে কাজিপুরের যোগাযোগ স্থাপিত হয়। যাতে করে মেঘাইঘাট-নাটুয়ারপাড়া নদী বন্দর হয়ে উত্তর বঙ্গের সাথে যোগাযোগ স্থাপন করা সম্ভব হয়।

পূর্বাংশের জনপ্রতিনিধিগন দ্রুত নদী ঘাটে একটি পল্টুন স্থাপনের আহ্বান করলে বিআইডব্লিউটিএ’র পরিচালক (সিএন্ডপি) মোঃ শাহজাহান আগামী দুমাসের মধ্যেই নাটুয়ার পাড়া ঘাটে একটি পল্টুন স্থাপনে প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করেন। এসময় কাজিপুরের সন্তান নৌ পরিবহন মন্ত্রণালয়ের উপ-সচিব মোঃ আনোয়ারুল ইসলাম এ বিষয়ে ভূমিকা রেখেছেন। তিনি এই বিজয়ের মাসেই পল্টুন স্থাপনে জন্য কর্তৃপক্ষকে অহ্বান জানান। যাতে করে ওপারের জনগন যাতায়াতের সুবিধা হয়।

পাঠকের মন্তব্য
আরো পড়ুন